বাসার ছাঁদের সেই মেয়েটি Bangla Premer Golpo

বাসার ছাঁদের সেই মেয়েটি Bangla Premer Golpo
বাসার ছাঁদের সেই মেয়েটি Bangla Premer Golpo

বাসার ছাঁদের সেই মেয়েটি (Bangla Premer Golpo): নতুন বাড়ি, নতুন কলেজ, কিছুই ভালো লাগছে না, কাউকেই চিনি না। একা একা কি আর ভালো লাগে! আগে যেই বাড়িতে থাকতাম সেখান আমার কতো বন্ধু ছিলো!

নতুন কজেজে ভর্তি হয়েছি, আব্বুর চাকরীটাও ট্র্যান্সফার হয়ে গেছে। সব মিলিয়ে আগের বাড়িটা ছাড়তে হয়েছে বাধ্য হয়ে। কি আর করা! আজকে এসেছি নতুন বাড়িতে, মন খারাপ করে বাসার ছাঁদে গেলাম।

বাসার ছাঁদের সেই মেয়েটি Bangla Premer Golpo

বাসার ছাঁদের সেই মেয়েটি Bangla Premer Golpo
বাসার ছাঁদের সেই মেয়েটি Bangla Premer Golpo

ছাঁদের একপাশে দাঁড়িয়ে আছি, আর আশেপাশের পরিবেশটা দেখছি। হঠাৎ খেয়াল করলাম ছাঁদে আমি একা না, আরেকজন ও আছে। একটি মেয়ে।

এতক্ষন খেয়াল করিনি, মেয়েটি মনেহয় আমার আগেই ছাঁদে এসেছিলো। যাই হোক, আমি নানা রকম বাহান করে মেয়েটির দিকে তাকাচ্ছি বার বার। আসলে মেয়েটি অনেক সুন্দর। বার বার দেখতে ইচ্ছে করছে। যদিও এটা ঠিক হচ্ছে না, তবুও আমার চোখ দুটো বার বার মেয়েটাকে দেখতে চাচ্ছে।

মেয়েটা হয়তো খেয়াল করেছে যে আমি ওর দিকে বার বার তাকাচ্ছি। আমি আর ভয়ে তাকানোর সাহস পাচ্ছি না। কিছুক্ষন পরে সন্ধ্যা হয়ে এলো, মেয়েটি ছাঁদ থেকে নেমে গেলো। আমিও আমার ঘরে চলে গেলাম।

আজকের বিকেলটা বেশ ভালোই কেটেছে। সারা বিকেল ছাঁদে ছিলাম আমি আর সেই মেয়েটি। কিন্তু কারো সাথেই কারো কথা হয়নি, শুধু হয়ছে দেখা দেখি। যদিও আমি একটু ভয়ে ভয়ে আছে, মেয়েটি কি আমাকে খারাপ ভাবলো নাকি!

যাই হোক, মেয়েটার কথা ভাবতে ভাবতে রাত পার হয়ে গেছে। আজকে প্রথম কলেজে যাবো। কাউকে চিনি না, জানি না, কলেজে যেতেই ইচ্ছে করছে না। তবুও গেলাম। আমার ক্লাসের কিছু ছেলের সাথে পরিচয় হলো, ভালো লাগছে এখন। অন্তত কাউকে তো চিনি এখন!

ক্লাসে স্যার আসলেন, লেকচার দেয়া শুরু করলেন, যা শুনতে আমার একটু ও ভালো লাগছে না। বিশাল বড় ক্লাসরুম, কলেজের ক্লাসরুম এতো বড় হয়! নাকি এই কলেজের ক্লাসরুমগুলোই বেশি বড়!

এদিক ওদিক তাকিয়ে ক্লাসেটা ভালো করে দেখছি। এমন সময় চোখে পরলো সেই মেয়েটিকে। ঐযে, গতকাল ছাঁদে যেই মেয়েটিকে দেখেছিলাম সে মেয়েটি আমার ক্লাসে! আমি তো আশ্চর্য হয়ে মেয়েটির দিকে তাকিয়েই আছে এক নজরে। কিন্তু আমার ভাগ্য খারাপ, স্যার খেয়াল করেছে। স্যার আমার সামনে এসে বললো,

স্যার: কি ব্যাপার স্যার? আপনি কি ক্লাস করছে এসেছে নাকি প্রেম করতে?

আমি: জি স্যার!

স্যার: হ্যা স্যার। আপনি মেয়েটির দিকে এভাবে তাকিয়ে আছেন কেনো? আগে কখনো মেয়ে দেখেননি?

আমি: দেখেছি তো স্যার। গতকাল বিকেলে ছাঁদে দেখেছি।

স্যার: কি!

আমি: না স্যার, কিছু না, sorry, আর এমন হবে না।

স্যার: ঠিক আছে, বসো। প্রেম ক্লাসের বাইরে করবে, আর ক্লাসে মনযোগ দিয়ে লেকচার শুনবে।

কলেজের প্রথমদিন স্যার আমার ইজ্জত আর রাখলো না! ক্লাসে কতো ছেলেরা কতো মেয়ের দিকে তাকাচ্ছে। আর স্যার শুধুমাত্র আমাকেই খেয়াল করলেন। আমার ভাগ্যটাই খারাপ।

তবে মনেহচ্ছে আমিও একটু বেশি আগ্রহ নিয়ে মেয়েটার দিকে তাকিয়ে ছিলাম। আসলে অবাক হয়ে গিয়েছিলাম, গতকাল বিকালে বাসায় ছাঁদে দেখা মেয়েটিকে আমার ক্লাসে দেখে।

কিন্তু আমি তো ভয়ে ভয়ে আছি, মেয়েটা আমার দিকে যেভাবে রাগি রাগি ভাব নিয়ে তাকিয়ে আছে, মনে হচ্ছে যেনো সুযোগ পেলে এখনই আমাকে শেষ করে ফেলবে। তাই ভয়ে ভয়ে ক্লাস করছি আর ক্লাস শেষে এক দৌড় দিয়ে বাসায় চলে যাবো। কলেজ থেকে বাসা বেশি দূরে না, ২ মিনিটের রাস্তা।

যেই ভাবনা সেই কাজ, ক্লাস শেষ হতে দেরি আর দৌড় দিতে দেরি নাই। আগে পেছনে আর কিছু দেখিনি। এক দৌড়ে বাসায় চলে এসেছে। এতে ক্লাসের কেউ আমার সাথে মজা করতে পারেনি ঐ ঘটনাটার জন্য, আর মেয়েটার মুখোমুখিও হতে হয়নি।

বিকেল হয়ে গেছে। আজাকে আর ছাঁদে যাচ্ছি না। শুধু আজকে কেনো! কখনোই যাবো না। ঐ মেয়েটার থেকে ১০ হাত দূরে থাকলে পারলেই বাঁচি। স্যার তো আমার মান ইজ্জত সব শেষ করে দিছে।

বসে বসে যখন এইসব কথা ভাবছি তখন খেয়াল করলাম আমাদের ফ্লাটে কারা যেনো এসেছে। কৌতুহল নিয়ে বসার ঘরে যেতেই দেখি বিপদ! ওরে আল্লাহ! আজকে আমি শেষ! আল্লাহ রক্ষা করেন!

আমাদের বসার ঘরে ঐ মেয়েটি! ঐযে ঐ মেয়েটে, ঐযে গতকাল ছাঁদে আর আজকে ক্লাসে যেই মেয়েটির দিকে তাকিয়ে ছিলাম, সে মেয়েটি আমাদের ঘরে! সাথে আরোকজন আছে! উনি কি ঐ মেয়েটি আম্মু!

কেনো এসেছে তারা! তারা কি আমার বিচার দিতে এসেছে! এখন কি হবে আমার! আল্লাহ আমাকে রক্ষা করেন, আমার আব্বু যেই রাগী মানুষ, এইসব কথা শুনলে আমাকে শেষ করে ফেলবে!

যখন আমার ঘরে বসে বসে আমি এইসব কথা ভাবছি, তখন আমার বিপদ আমাকে খুঁজতে খুঁজতে আমার রুমে চলে এসেছে………….. মেয়েটি আমার ঘরে এসে আমার দিকে তাকিয়ে আছে….. রুমের ভেতরে ঢোকার আগে আনুমতিও নেয়নি, বুঝেই পারছে, আমার বুক ধপ ধপ করছে ভয়ে………

মেয়েটি: কি সমস্যা তোমার?

আমি: sorry!

মেয়েটি: তুমি আমাকে দেখলে এভাবে তাকিয়ে থাকো কেনো! গতকাল ছাঁদে তাকিয়ে ছিলে, আজকে ক্লাসে, আবার এখন এখানেও………….

আমি: গতকাল বিকালে আপনার দিকে তাকিয়ে ছিলাম আপনার রূপের জন্য, আজকে ক্লাসে তাকিয়ে ছিলাম অবাক হয়ে, আর এখন তাকিয়ে আছি ভয়ে……

মেয়েটি: ভয়! ভয়ের কি আছে? আমি কি ভূত?

আমি: please, আমার নামে বিচার দিয়েন না, আর আপনার দিকে তাকাবো না। আমার আব্বু জানতে পারলে আমি শেষ। please.

মেয়েটি: হিহিহি, তুমি কি ভাবছো তোমার নামে বিচার দেয়ার জন্য এসেছি আমি আর আমার আম্মু?

আমি: বিচার দিতে আসেন নি!

মেয়েটি: আরে না! বিচার দেয়ার কি আছে! আমরা তোমাদের পাশে ফ্লাটে থাকি, আমার আম্মু এসেছে তোমার আম্মুর সাথে কথা বলতে, আর আমি এসেছি তোমাকে ছাঁদে নিয়ে যেতে।

আমি: তাই নাকি! (আমি তো অযথাই ভয় পাচ্ছিলাম! আল্লাহ রক্ষা করছেন।) না, আমি ঠিক করেছি আর ছাঁদে যাবো না।

মেয়েটি: কেন! ছাঁদে কেনো যাবে না!

আমি: ছাঁদে গেলেই আপনাকে দেখতে ইচ্ছে করবে, তাই আর যাবো না।

মেয়েটি: সমস্যা নেই, যতো ইচ্ছা আমাকে দেখতে পারো, আমি বিচার দিবো না। আর আমাকে আপনি করে বলতে হবে না, তুমি করে বলতে পারো।

আমি: এই বাড়িতে এসে মন খারাপ ছিলো, ভাবছিলাম কোনো বন্ধু নেই, কলেজেও কাউকে চিনি না। কিন্তু এখন দেখছি বন্ধু আর ভালোবাসার মানুষ দুটোই পেয়েছি।

মেয়েটি: আমি না হয় তোমার বন্ধু, কিন্তু তোমার ভালোবাসার মানুষটা কে শুনি?

আমি: (মেয়েটার একটু কাছে গিয়ে কানে কানে বললাম) সেটা সময় হলে বলবো।

মেয়েটি: আমি ও সেই সময়ের অপেক্ষায় রইলাম।

আমি: চলো এখন ছাঁদে যাই।

মেয়েটি: চলো…………..

আরো গল্প পড়তে এখানে ভিজিট করুন >>> গল্প

Copyright – prothomalo.org

সবাই যা খুঁজছে: bangla premer golpo, bangla premer golpo written, bangla love story, bangla love story facebook, bangla romantic love story, bangladesh love story, first love story bangla, first love story bengali, romantic love story bangla,

বিশেষ নোটিশ

আমাদের নতুন ওয়েবসাইট aWhatsappStatus.org একবার হলেও ভিজিট করুন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


three × one =