২০২০ সালের কোরবানির ঈদ কত তারিখে হবে বাংলাদেশে?

২০২০ সালের কোরবানির ঈদ কত তারিখে হবে বাংলাদেশে
২০২০ সালের কোরবানির ঈদ কত তারিখে হবে বাংলাদেশে

২০২০ সালের কোরবানির ঈদ কত তারিখে হবে বাংলাদেশে : ঈদ কতো তারিখে হবে সেটা চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করলেও আগে থেকেই অনুমান করা যায় যে ঈদুল আযহা কবে হবে। তবে সঠিক দিন একমাত্র আল্লাহই ভালো জানেন, ঈদের চাঁদ ওঠার পরে আমরা সেটা সঠিকভাবে জানতে পারি।

২০২০ সালের কোরবানির ঈদ কত তারিখে হবে বাংলাদেশে

২০২০ সালের কোরবানির ঈদ কত তারিখে হবে বাংলাদেশে
২০২০ সালের কোরবানির ঈদ কত তারিখে হবে বাংলাদেশে

১ আগস্ট

বাংলাদেশে ঈদ উল আযহা ২০২০ সালের ১ আগস্ট। কারন সৌদিআরবে ৩১ জুলাই ঈদ হবে। সেই হিসেবে বাংলাদেশে ১ দিন পরে ১ আগস্ট কোরবানীর দিন পালন করা হবে। জ্বিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করে ৩০ জুলাই পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে এবার ২০২০ সালে আর ১০ জিলহজ অর্থ্যাৎ ৩১ জুলাই সৌদিআরবে ঈদ পালন করা হবে।

যেহেতু আরবি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী জ্বিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখে ঈদুল আজহা পালন করা হয়ে থেকে দিন ঈদের বেশ কয়েকদিন আগেই সঠিক তারিখ আমরা সবাই জানতে পারি।

যেহেতু রোজার ঈদ বা ঈদুল ফিতর এর সঠিক তারিখ জানতে হলে আমাদের ঈদের আগের দিন সন্ধ্যার পরে চাঁদ দেখার উপরে নির্ভর করতে হয়, কিন্তু কুরবানির ঈদের চাঁদ ঈদের প্রায় ১০ দিন আগেই উঠে যায়, তাই ঈদের প্রায় ১০ দিন আগে আমরা জানাতে পারবো ২০২০ সালে ঈদুল আযহা কতো তারিখে হবে বাংলাদেশে।

এছাড়াও ঈদের দিন, ঈদের দ্বিতীয় দিন ও ঈদের তৃতীয় দিন কুরবানি করা যায়, এটা আমরা সবাই জানি। সাধারণত বাংলাদেশের মানুষ ঈদের দিনেই কোরবানী করে থাকে।

কোরবানির গরু হচ্ছে ঈদুল আযহার অন্যতম আকর্ষণ কারন বাংলাদেশে প্রায় অধিকাংশ মুসলিম গরু কুরবানি করে থাকেন। গরুর পরে ছাগলের অবস্থান বাংলাদেশের মানুষের কোরবানির পশুর পছন্দের তালিকায়।

তবে কিছু সংখ্যক উট, ভেড়া, দুম্বা কোরবানি করতে দেখা যায়, কিন্তু এর সংখ্যা বাংলাদেশে অনেক কম। কারন গরু আর ছাগলের মতো উট ও দুম্বা বাংলাদেশে সহজলভ্য নয়, সেই সাথে দাম ও অনেক বেশি।

আমাদের সবার একটা কথা সব সময় মনে রাখা উচিৎ, কোরবানি শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য, লোক দেখানো কোরবানী আল্লাহর কাছে কবুল হবে না, এটাই স্বাভাবিক। তাই সব সময় চেষ্টা করবেন আপনার কোরবানি যেনো কোনো ভাবেই লোক দেখানো কাজ না হয়।

আবার অনেকেই আছে যাদের উপর কুরবানি ওয়াজিব হয়েছে, কিন্তু সে কোরবানী করে না। আবার এমন অনেকেই আছে যাদের সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও তারা ছোট ছোট গরু কোরবানি দেয় আর ঈদের দিন যখন তাদের গরিব আত্মীয় অথবা তার পরিচিত গরিব প্রতিবেশিরা একটু মাংস পাবার আশায় যখন তার কাছে আসে তখন তাদের তাড়িয়ে দেয়, অথবা এমন কিছু কথা শোনায় যার ফলে সেই গরিব লোকেরা কষ্ট পায়।

সবই বাস্তব, নিজের চোখেই এইসব ঘটনা দেখেছি, তাই বলছি, লোক দেখানোর জন্য বড় গরু কিনলেও যেমন আল্লাহ খুশি হবেন না, তেমনি গরিবের কষ্ট দিলেও আল্লাহ খুশি হবেন না।

বিশেষ নোটিশ

আমাদের নতুন ওয়েবসাইট aWhatsappStatus.org একবার হলেও ভিজিট করুন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


fifteen − 8 =