274+ Romantic Premer Golpo | বয়ফ্রেন্ড আমার ঐটার সাইজ জানতে চায়

Romantic Premer Golpo: আজকে সকাল থেকেই আমার বয়ফ্রেন্ড আমার সাথে একটু অন্যরকম ব্যবহার করছে। মনে হচ্ছে ও আমাকে কিছু বলতে চায় কিন্তু বলতে পারছে না। আমি অনেকবার জিজ্ঞেস করেছি যে ওর কোন সমস্যা হয়েছে কিনা, ও তো না বলেছে।

ভাবছি রাতে খাওয়ার পরে ওকে ফোন দিয়ে কথা বলবো। আমি ওকে খুব ভালো ভাবেই চিনি, আমি খুব ভালো ভাবেই বুঝতে পারছি যে ও আমার কাছে কিছু লুকাচ্ছে। তবে আমিও জানি কীভাবে ওর পেট থেকে কথা বের করতে হয়।

Romantic Premer Golpo

আমি: হ্যালো, কি করো?

বয়ফ্রেন্ড: তেমন কিছু না, একটু ইন্টারনেটে সার্চ করছি।

আমি: কি সার্চ করছো?

বয়ফ্রেন্ড: এমনি একটু সার্চ করছি, এখন তো ইন্টারনেটের যুগ, দেখি যদি আমার পাওয়া যায় আমার প্রশ্নের উত্তর।

আমি: এভাবে পেটের মধ্যে কথা লুকিয়ে রাখলে তো বদ হজম হবে, বলে ফেলো কি বলতে চাও।

বয়ফ্রেন্ড: সত্যি বলবো?

আমি: (দেখছেন! আমি বলছিলাম না আমার কাছে কিছু একটা লুকাচ্ছে!) হ্যা, সত্যিই বলো, আচ্ছা, তুমি কোন মেয়ের সাথে উন্টাপাল্টা কিছু করো নাই তো!

বয়ফ্রেন্ড: কি যে বলো না তুমি! গতকাল তোমারে প্রথমবার জড়িয়ে ধরলাম আর আজকেই অন্য মেয়ের সাথে উল্টা পাল্টা কিছু করবো! এই চিনলা তুমি আমারে!

আমি: আচ্ছা, হইছে, হইছে, এখন বলো তো কি হইছে তোমার, কি কথা লুকাইয়া রাখছো পেটের ভেতরে?

বয়ফ্রেন্ড: আচ্ছা, আমরা একটা জিনিসের সাইজ বলতে পারবা?

আমি: কোন জিনিসের সাইজ?

বয়ফ্রেন্ড: ঐযে তুমি পরো না ছোট ছোট জামা, ঐগুলার সাইজ।

আমি: এই তুমি কি পাগল হয়ে গেছো! আমি আবার কবে ছোট ছোট জামা পরছি! হ্যা?

বয়ফ্রেন্ড: আরে পরো তো, আমি দেখছিলাম তোমারে জড়িয়ে ধরার সময়।

আমি: মানে কি! একবার জড়াইয়া ধইরা ই কি পাগল হইয়া গেলা নাকি! আর কিসের ছোট জামা পরছিলাম আমি!

বয়ফ্রেন্ড: আরে ঐযে, পেটের উপরে পরে যে ছোট ছোট জামা গুলা।

আমি: তুমি কি বাউজের কথা বলতাছো? ঐগুলা তো শাড়ির সাথে পরে, আর তুমি আমারে যেদিন জড়িয়ে ধরছিলা ঐদিন তো আমি শাড়ি পরি নাই! তাইলে ছোট জামা কীভাবে পরলাম!

বয়ফ্রেন্ড: আরে ব্লাউজ না, আর তুমি পরছিলা, আমি টের পাইছি যখন তোমারে জড়িয়ে ধরে তোমার পিঠে হাত বুলাইতাছিলাম।

আমি: এই তোমার হেয়ালি রাখো তো, ঠিক করে বলো কোন ছোট জামার কথা বলতাছো।

বয়ফ্রেন্ড: আরে ঐগুলো, বাউজের চেয়েও ছোট।

আমি: বাউজের চেয়েও ছোট জামা আবার হয় নাকি! কি সব উলটা পাল্টা বলতাছো তুমি হ্যা?

বয়ফ্রেন্ড আমার ঐটার সাইজ জানতে চায়

বয়ফ্রেন্ড: রাগ কইরো না প্লিজ, আমি তো দেখছি তুমি জামার নিচে পরছিলা, বুকের ছোট জামা।

আমি: ব্রা?

বয়ফ্রেন্ড: হ্যা, হ্যা! ঐটা ই!

আমি: হি হি হি, হা হা হা।

বয়ফ্রেন্ড: হাসছো যে?

আমি: হাসবো না তো কি করবো! তুমি কি জানো না যে ঐ গুলারে ব্রা বলে?

বয়ফ্রেন্ড: জানি তো, কিন্তু বলতে কেমন যেনো লাগছিলো, আবার তুমি যদি কিছু মনে করো!

আমি: সরাসরি জিজ্ঞেস করলে কিছু মনে করব, আর ঘুরিয়ে পেচিয়ে জিজ্ঞেস করলে কিছুই মনে করবো না?

বয়ফ্রেন্ড: Sorry.

আমি: ওরে আমার ভোলা ভালা বয়ফ্রেন্ড টা!

বয়ফ্রেন্ড: আমাদের সম্পর্কটা কতো মজার, তাই না? ১ মাস আগে আমাদের বিয়ে ঠিক হয়েছে, আর ৫ দিন পরে আমাদের বিয়ের। বিয়ে ঠিক হবার পরেই আমি তোমাকে বললাম যে আমার মনে অনেক আফসোস যে আমার কোন গার্লফ্রেন্ড নেই। আমার সেই ইচ্ছে পূরণ করতে বিয়ের আগের দিন পর্যন্ত আমার গার্লফ্রেন্ড হয়ে থাকবে বলে জানালে।

আমি: হুম।

বয়ফ্রেন্ড: আমি অনেক খুশি যে তুমি আমার বউ হবে আর তোমার সাথে আমি সারা জীবন কাটাবো।

আমি: আমি ও আপনার মতো বয়ফ্রেন্ড পেয়ে অনেক খুশি…. এখন বলো তো কেন তুমি সাইজ জানতে চাচ্ছো?

বয়ফ্রেন্ড: আসলে সিনেমাতে নাইকাদের দেখেছি অনেক সুন্দর সুন্দর ব্রা পরে, তাই আমিও তোমার জন্য কিনতে চেয়েছিলাম, মনের মধ্যে অনেক সাহস জোড়ার করে একটা দোকানে কিনতে ও গিয়েছিলাম।

আমি: কি! তুমি আমার জন্য ব্রা কিনতে গিয়েছিলে! হি হি হি…

বয়ফ্রেন্ড: আবার হাসছো তুমি! এদিকে আমি তোমাকে আমার করুণ অবস্থার কথা বর্ণনা করছি আর তুমি হাসছো!

আমি: Sorry… sorry.. তারপর?

বয়ফ্রেন্ড: তারপর দোকালের লোকগুলো বললো যে সাইজ কতো। কিন্তু আমি তো সাইজ জানি না, তাই আর কেনা হলো না।

আমি: সাইজের কথা পরে বলছি, আগে তুমি বলো তো, একবার জড়িয়ে ধরেই বুঝে ফেলেছো জামার ভেতরে কি কি আছে, তাহলে সাইজ টা কেনো বুঝে পারলে না?

বয়ফ্রেন্ড: সাইজ কীভাবে বুঝবো! আমি তো শুধুমাত্র তোমার পিঠে হাত বুলিয়েছিলাম জড়িয়ে ধরার সময়, বুকে তো হাত দেই নাই!

আমি: ওরে দুষ্টু ছেলে! কথা বলা শিখে গেছো বিয়ের আগেই!

বয়ফ্রেন্ড: হা হা হা…

আমি: তাহলে এক কাজ করি, সাইজ টা এখন বলবো না, বিয়ের দিন রাতে যখন রুমের ভেতরে তুমি আর আমি থাকবো একা, তখন তুমি নিজেই সাইজ মেপে নিয়ো।

বয়ফ্রেন্ড: কীভাবে মাপ দিবো?

আমি: তুমি তো আমার লজ্জা সরম সব ভেঙে দিবা দেখতাছি! আমি জানি না, যাও, কথা নাই তোমার সাথে। এমনিতেই তুমি আমাকে কি না কি ভাবছো মনে মনে। হয়তো ভাবছো মেয়েটার কোন লজ্জা নাই, সব বিষয় নিয়েই কথা বলে। আবার সেদিন তোমাকে জড়িয়ে ধরলাম, কি না কি ভেবেছো! যদিও তুমি আমার হবু জামাই, নয়তো ১০ হাত দূরে রাখতাম যদি সত্যিই শুধু বয়ফ্রেন্ড হতে।

বয়ফ্রেন্ড: হা হা হা, আচ্ছা একটা কথা বলবো?

আমি: হ্যা, বলো, ১০০ বার বলো, ১০০০ বার বলো।

বয়ফ্রেন্ড: তোমার ঠোঁট গুলো অনেক সুন্দর, মাঝে মাঝে ইচ্ছে করে…

আমি: দাঁড়াও… দাঁড়াও… বিয়ের আগে চুমু দেয়ার সুযোগ আর পাচ্ছো না, বিয়ের পরে আমার মাথার চুল থেকে পায়ের তালু পর্যন্ত যা আছে সব কিছু তোমাকে দিয়ে দিবো, তখন যা ইচ্ছা, যতো ইচ্ছা করো, আপাততো আর কিছুই না। এমনিতেই তোমাকে জড়িয়ে ধরে বিপদে পরছে, সোজা ব্রা কিনতে চলে গেছো! কেউ জানতে পারলে কি হতো!

বয়ফ্রেন্ড: কে আর জানবে! আর আমি কি এখন বাচ্চা নাকি, বিয়ে করছি আর মাত্র ৫ দিন পরে, তারপর বাচ্চা কাচ্চা হবে।

আমি: বিয়ের আগেরি বাচ্চা কাচ্চার plan করে ফেলেছো! বাহ! আমার বর তো অনেক fast!

বয়ফ্রেন্ড: বলতে হবে না বর টা কার!

আমি: হি হি হি… আচ্ছা ঠোঁটের কথা কি যেনো বলছিলে…

বয়ফ্রেন্ড: না থাক, বলবো না, তুমি তো আমারে সব সময় উলটা পাল্টা ভাবো। আমি তোমার সুন্দর ঠোঁটের জন্য লিপস্টিক কেনার কথা বলতে যাচ্ছিলাম, আর তুমি সেটাকে চুমু দেয়া ভেবে…

আমি: Sorry… Sorry… তবে তুমি যদি এখন আমার সামনে থাকতে, সত্যি বলছি, চুমু দিতে দিতে তোমার গালটা লাল করে দিতাম।

বয়ফ্রেন্ড: আমি একটু বাইরে বের হবো, ৩০ মিনিট পরে কথা বলছি।

আমি: কিসের মধ্যে কি! হঠাৎ কথা মাঝে বাইরে বের হবে যে!

বয়ফ্রেন্ড: তোমার বাসায় আসছি।

আমি: মানে কি! এখন রাত ১১ টা বাজে, আমার বাসায় কেনো আসবে!

বয়ফ্রেন্ড: তুমি না বললে যে এখন যদি আমি তোমার সামনে থাকতাম তাহলে আমাকে চুমু দিতে, এই সুযোগ কাজে না লাগালে কি চলে!

আমি: কি!

এই Romantic Premer Golpo টি কাল্পনিক, আমরা প্রায় প্রতিদিন এই prothomalo.org ওয়েবসাইট নতুন গল্প আপলোড করে থাকি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


three + 14 =